শামীমকে দলীয় সমর্থন, অনড় আইভী

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে এ কে এম শামীম ওসমানকেই সমর্থন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। তবে এরপরও সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, তিনি নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়াচ্ছেন না।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সাবেক সংসদ সদস্য শামীমকে সমর্থনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন আওয়ামী লীগের মুখপাত্র মাহবুব-উল আলম হানিফ। তবে গত কয়েকদিনে সরকারি দলের কেন্দ্রীয় নেতারা শামীমের পক্ষেই দলের অবস্থানের কথা জানিয়ে আসছিলেন।

আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হানিফ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থন দিয়েছে শামীম ওসমানকে।”

নতুন সিটি কর্পোরেশন নারায়ণগঞ্জে দলের দুই নেতা মেয়র পদে প্রার্থী হওয়ায় বিপাকে পড়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী দুই পরিবারের দুই সদস্যকে সমঝোতায় আনতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনাও তাদের নিয়ে দুই দফা বৈঠক করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত অনমনীয় থেকে প্রচার চালাতে থাকেন তারা।

এর মধ্যেই আওয়ামী লীগের তিন সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মদ হোসেন, খালেদ মাহমুদ চৌধুরী এবং আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন কয়েক দিন আগে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে গিয়ে শামীম ওসমানকে সমর্থন দেন।

স্বপন বলেন, “আমরা তিন সাংগঠনিক সম্পাদক একত্রে এখানে উপস্থিত হয়েছি। এ থেকেই বোঝা যায়, দলের সমর্থন কার পক্ষে।”

নির্বাচনী আচরণবিধির কারণে দল ‘প্রকাশ্যে’ সমর্থনের কথা জানাতে পারেনি বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এ বিষয়ে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ ১৪ অক্টোবর বলেছিলেন, “কেউ হয়তো ব্যক্তিগতভাবে ওখানে (নারায়ণগঞ্জ) গিয়েছিলেন। তারা কারো পক্ষে ঘোষণা দিয়ে থাকলে আমার তা জানা নেই। আওয়ামী লীগের (ভারপ্রাপ্ত) মুখপাত্র হিসেবে এ বিষয়ে আমার কথা বলা সমীচীন হবে না।”

আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের পরস্পরবিরোধী বক্তব্যের কারণে আসলে কে দলটির সমর্থন পাচ্ছেন তা নিয়ে সৃষ্টি হয় ধূম্রজাল।

আইভীও বলে আসছিলেন, শামীম ওসমানের প্রতি তিন সাংগঠনিক সম্পাদকের সমর্থন দলীয় সমর্থন নয়। এটা শামীমের প্রতি তার বন্ধুদের সমর্থন।

হানিফ মঙ্গলবার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ওখানে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় এবং সহযোগী সংগঠনের নেতারা কাজ করছেন। এ নিয়ে কোনো রকম বিভ্রান্তি থাকার তো কারণ নেই।”

হানিফের ঘোষণার প্রতিক্রিয়া জানতে আইভীকে টেলিফোন করা হলে তিনি মঙ্গলবার রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি বাইরে আছি। হানিফ ভাই কী বলেছেন, আমি তা শুনিনি। আপনারা জানেন আমি আওয়ামী লীগ করি। প্রতিক্রিয়া এখনি জানাতে পারছি না।”

নির্বাচনে থাকবেন কি না- জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “আমার সরে দাঁড়ানোর সুযোগ নেই। আমি মাঠে আছি, মাঠে থাকবো। ৩০ অক্টোবর জনগণ ভোটের মাধ্যমে আমার জবাব দেবে।”

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের ঘোষণার বিষয়টি নিজে নিশ্চিত হয়ে বুধবার আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবেন বলেও জানান নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র আইভী।

৩০ অক্টোবর অনুষ্ঠেয় এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন নেতা খান সাহেব ওসমান আলীর নাতি শামীম ‘দেয়ালঘড়ি’ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। শামীমের বাবা এ কে এম শামসুজ্জোহাও ছিলেন আওয়ামী লীগের নেতা ও সংসদ সদস্য। শামীমের এক ভাই নাসিম ওসমান জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য। অন্য ভাই সেলিম ওসমান বিকেএমইএ সভাপতি।

আইভীর বাবা আওয়ামী লীগ নেতা আলী আহাম্মদ চুনকা নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান ছিলেন। পেশায় চিকিৎসক আইভী ‘দোয়াত কলম’ প্রতীক নিয়ে লড়বেন। বিগত চারদলীয় জোট সরকারের সময়ে বিরোধী দল সমর্থিত প্রার্থী হয়ে বিপুল ভোটে জেতেন আইভী।

সরকারি দলের দুই প্রার্থী হওয়ায় বিরোধী দলের নেতা-কর্মীরা আশা করছেন, এতে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী তৈমূর আলম খোন্দকার সুবিধা পাবেন।

সূত্রঃ বিডিনিউজ২৪

This entry was posted in বিডিনিউজ২৪. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s