নাসিক নির্বাচন- ২০১১ : আইভীর দিকে ওসমান-ক্যাডার লিটন তেড়ে যাওয়ায় উভয় শিবিরে উত্তেজনা : ঘুরে দাঁড়িয়েছেন তৈমূর আলম খন্দকার

 নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াত্ আইভীর দিকে তেড়ে গেল আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী শামীম ওসমানের ক্যাডার লিটন সাহা ওরফে বোচা লিটন। রোববার রাত ৯টায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে একটি বেসরকারি চ্যানেলের লাইভ শো শেষে শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ডা. সেলিনা হায়াত্ আইভীর সঙ্গে অসদাচরণ করে বোচা লিটন। লাইভ শোতে আইভী নিজেকে আওয়ামী লীগ পরিচয় দেয়ায় লিটন কটূক্তি করলে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে লিটন আইভীর দিকে তেড়ে যায়। এসময় আইভী সমর্থক সাবেক ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক জিএম আরাফাতসহ অন্য সমর্থকদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। পরে আইভী তার সমর্থকদের নিয়ে নারায়ণগঞ্জ ক্লাব ত্যাগ করেন। এ খবর শহরে ছড়িয়ে পড়লে উভয় প্রার্থীর সমর্থকের মধ্যে দেখা দেয় উত্তেজনা। নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই আওয়ামী লীগের এই দুই প্রার্থীর সমর্থকরা উত্তেজনাকর পরিস্থিতির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, লাইভ প্রোগ্রাম শেষে আইভী তার সমর্থক জিএম আরাফাতসহ অন্যদের নিয়ে বের হয়ে যাচ্ছিলেন। এসময় সিঁড়িতে অপেক্ষমাণ বোচা লিটন আইভী এবং আইভীর বাবা আলী আহাম্মদ চুনকা আওয়ামী লীগের কে তা জানতে চায়। আইভী তখন ‘এসব কথা জানার তুমি কে’ প্রশ্ন করলে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। বোচা লিটন উত্তেজিত হয়ে বলে, আপনি কবে থেকে আওয়ামী লীগ করেন, আপনি কেন মিথ্যা কথা বলছেন? লিটন সাহা ব্যাপক হট্টগোল বাধিয়ে আইভীর পরিবার নিয়ে অশ্লীল মন্তব্য করে তার দিকে তেড়ে যায়। এসময় আরাফাতের সঙ্গে বাদানুবাদ শুরু হয়। হট্টগোল শুনে শামীম ওসমানসহ অন্যরা ঘটনাস্থলে এসে তারাও বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়েন। ফলে বেসরকারি টেলিভিশনের কর্মকর্তারা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ে যান। পরে তাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হলেও উভয় প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দেখা দেয় উত্তেজনা। নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবে অপর একটি টিভি চ্যানেলের লাইভ শো শুরু হয় রাত সাড়ে ১০টায়। এসময় প্রেস ক্লাবের চারদিকে শামীম ওসমান ও আইভীর সমর্থকরা অবস্থান নিলে চরমে উত্তেজনা দেখা দেয়। দ্রুত র্যাব ও পুলিশ এসে উপস্থিত হওয়ায় অপ্রীতিকর কিছু ঘটেনি। উভয় প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে এখনও উত্তেজনাকর পরিস্থিতি বিরাজ করছে।
ঘুরে দাঁড়িয়েছেন তৈমূর আলম খন্দকার
নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনের শেষ মুহূর্তে এসে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার। নারায়ণগঞ্জ নগর উন্নয়ন কমিটির মনোনীত প্রার্থীর সমর্থনে গতকাল সকাল থেকেই বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা ও কেন্দ্রীয় সব অঙ্গসংগঠনের নেতারা মোট ৭৪টি দলে বিভক্ত হয়ে ২৭টি ওয়ার্ডে দিনব্যাপী নির্বাচনী প্রচারণা চালান। উঠান বৈঠক, পথসভা ও ভোটারদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের মাধ্যমে তারা তৈমূরকে আনারস মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আহ্বান জানান। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট আবুল কালামের তত্ত্বাবধানে বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা সাবেক মন্ত্রী অধ্যাপক এমএ মান্নান, সাবেক মন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরী, হাবিবুর রহমান হাবিব, মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল, শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী এমপি, সাবেক মন্ত্রী গৌতম চক্রবর্তী, ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম আলিম, তাঁতীদলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিন, লায়ন হারুন এমপি, কেন্দ্রীয় যুবদলের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, কেন্দ্রীয় নেত্রী শিরিন সুলতানা, কেন্দ্রীয় নেতা নাজিম উদ্দিন আলম, খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা জয়ন্ত কুমার কুণ্ডু, বরিশালের সাবেক মেয়র আহসান হাবিব কামাল, ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবদুস সালাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক সরাফত আলী সফু, কেন্দ্রীয় বিএনপি নেতা বদরুজ্জামান খসরু, সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট বিলকিছ জাহান শিরিন, জাসাসের সভাপতি এমএ মালেক, সাধারণ সম্পাদক কণ্ঠশিল্পী মনির খান, আন্তর্জাতিক সম্পাদক কণ্ঠশিল্পী রিজিয়া পারভীন, ছড়াকার আবু ছালেহ, জাসাস সহসভাপতি রফিকুল ইসলাম রফিক, আনিসুল ইসলাম সানি, কণ্ঠশিল্পী হাসান চৌধুরী, সহসভাপতি আহসান উল্লাহ চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খালেদ এনাম মুন্না, সাবেক এমপি আবদুল গফুর ভূঁইয়া, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক সিকদার, সাইফুল ইসলাম পটু, উপজেলা চেয়ারম্যান নজির আহমদ, যুবদলের সাবেক সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন খান, উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মুকুল, আজাদ বিশ্বাস, মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন, অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, আবদুল হাই রাজু, আবদুল হালিম জুয়েল, মাজেদুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবির, অ্যাডভোকেট জাকির হোসেন, ফখরুল ইসলাম মজনু, অ্যাডভোকেট আবদুল হামিদ ভাসানী, হাজী শাহীন, সুরুজ্জামাল, অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, আশরাফুল হক রিপন, দীপু ভূইয়া, মিজানুর রহমান, সরকার আলম, জয়নাল আবেদীন, মনসুর উদ্দিন পলিন, জাহিদ হাসান রোজেল, অ্যাডভোকেট আনোয়ার প্রধান, আকরাম প্রধান, রহিমা শরীফ মায়া, নূরুন্নাহার, দিলারা মাসুদ ময়না প্রমুখ প্রচারণায় অংশ নেন।
অপরদিকে মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার সকাল থেকেই গলাচিপা মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে ঘোড়াপট্টি, গোয়ালপাড়া, নন্দীপাড়া হয়ে আমলাপাড়া মাদরাসাসংলগ্ন এলাকায় গণসংযোগ করেন এবং আমলাপাড়া মাদরাসার শিক্ষক ও ছাত্রদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করে ভোট প্রার্থনা করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা আলহাজ জান্নাতুল ফেরদৌস, এটিএম কামাল, আবু আল ইউসুফ খান টিপু, মাওলানা ফেরদৌস রহমান, মাওলানা আনিছ আনসারী প্রমুখ। এ সময় মেয়র প্রার্থী তৈমূর আলম খন্দকার বলেন, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনকে একটি পরিকল্পিত, আধুনিক ও নিরাপদ নগরীতে পরিণত করতে আপনারা আমাকে আনারস মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করে আপনাদের সব সমস্যা সমাধানের মাধ্যমে সেবা করার সুযোগের ব্যবস্থা করে দিন।
এদিকে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ১৬৩টি কেন্দ্রে সার্বক্ষণিক কাজ করার জন্য প্রতিটিতে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল ২১ সদস্যের কমিটি গঠন কাজ সম্পন্ন করেছে। স্থানীয় নেতাকর্মী সমন্বয়ে এই ১৬৩টি কমিটিকে মনিটরিং করার জন্য কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের ১০টি টিমকে মাঠে নামানো হয়েছে বলে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল আসলাম আলিম জানান। কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের নেতারা গত দু’দিন ধরে নারায়ণগঞ্জে কাজ করে যাচ্ছেন।
আইভীর পক্ষে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা
সকালে আইভী ৮নং ওয়ার্ডের গোদনাইল, ধনকুণ্ডা, চৌধুরীবাড়ী, তাতখানা, সৈয়দপুর ও বৌবাজার এলাকায় এবং বিকাল পর্যন্ত ১২নং ওয়ার্ডে খানপুর, হাসপাতাল রোড, ব্যাংক কলোনি, মিশনপাড়া, ডন চেম্বার ও চাষাঢ়ায় গণসংযোগ করেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন, সহসভাপতি হায়দার আলী পুতুল, জেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাদির, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক নিজামউদ্দিন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম আরাফাত, খাজা রহমতউল্লাহ, শহীদদুল্লাহ প্রমুখ।
আইভীর লোকজনদের মারধর
এদিকে গতকাল দুপুরে সিটি করপোরেশন এলাকার গোদনাইল এলাকাতে আইভীর পক্ষে গণসংযোগ করার সময় আওয়ামী ওলামা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আবুল হাসান শেখ শরীয়তপুরীর ওপর হামলা চালায় শামীম ওসমানের সমর্থকরা।
মূর্তি ভাঙার তদন্তের দাবিতে ইসির কাছে আইভীর চিঠি
রোববার ১৬নং ওয়ার্ডের বাবুরাইন ঋষিপট্টিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের মূর্তি ভেঙে ফেলার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত ও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে চিঠি দিয়েছেন মেয়র প্রার্থী আইভীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট শহর আওয়ামী লীগ সভাপতি আনোয়ার হোসেন। তিনি চিঠিতে উল্লেখ করে বলেন, বিষয়টিকে আমরা অত্যন্ত উদ্বেগজনক হিসাবে প্রত্যক্ষ করছি। ভবিষ্যতে যেন এ জাতীয় ঘটনা কেউ সৃষ্টি করতে না পারে, তা দৃঢ়ভাবে কামনা করছি। এ অবস্থায় ওই ঘটনার আলোকে উচ্চপর্যায়ের নিরপেক্ষ তদন্তের ব্যবস্থা গ্রহণ করে দোষী সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য যথাযথ ত্বরিত ব্যবস্থাগ্রহণের অনুরোধ করছি।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের গাড়িতে ঢিল নিক্ষেপ
নারায়ণগঞ্জ বন্দরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে অসদাচরণ করায় এক আওয়ামী লীগ নেতাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৩ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।
মেয়র প্রার্থী শামীম ওসমানের সমর্থক আওয়ামী লীগ নেতা মো. শাহ আলমকে এ দণ্ড দেয়া হয়। রোববার রাতে সিটি করপোরেশনের ২৫নং ওয়ার্ডের বন্দরের লক্ষণখোলা এলাকায় পৌরসভার পুকুরসংলগ্ন স্থানে দণ্ড প্রদানের এ ঘটনা ঘটে। জরিমানা শেষে ফেরত আসার সময়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের গাড়িতে ঢিল ছুড়েছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা।
নাসিক নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার হাসানুজ্জামান জানান, রোববার রাতে লক্ষণখোলা এলাকায় মেয়র প্রার্থী শামীম ওসমানের পক্ষে মাইকিং চলছিল। ভ্রাম্যমাণ আদালত দেখতে পায়, মাইকম্যানের কাছে নির্বাচন কমিশনের দেয়া কোনো টোকেন নেই। মাইকম্যানকে কাগজের কথা জিজ্ঞেস করলে সে ‘নিয়ে আসছি’ বলে চলে যায়। এ সময় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহ আলম এসে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন এবং অসদাচরণ করেন। এ কারণে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে নগদ ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে তিন মাসের সাজা দেন। জরিমানার টাকা নিয়ে ফেরত আসার সময়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের গাড়ি লক্ষ্য করে পেছন থেকে ঢিল ছোড়া হয়েছে। তবে এতে গাড়ির কিংবা অভিযানে থাকা লোকজনের কোনো ক্ষতি হয়নি। অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের শনাক্ত করতে পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
শামীম ওসমানের গণসংযোগ
গতকাল শামীম ওসমানের পক্ষে গণসংযোগ করেছেন ব্যবসায়ী ও গার্মেন্ট শ্রমিক নেতারা। গতকাল দিনভর পোশাক শিল্পের শীর্ষ সংগঠন বিকেএমইএ ও বিজেএমইএ নেতারা শহরের চাষাঢ়া, খানপুর, তলা, কিলারপুল এলাকায় পথসভা করে দেয়ালঘড়ি প্রতীকে ভোট চান। এসময় উপস্থিত ছিলেন বিকেএমইএ’র সহসভাপতি মো. হাতেম, হুমায়ূন কবীর, শামীম আহমেদ, ফারুক বিন ইউছুফ পাপ্পু, বিজেএমইএ নেতা এসএম মান্নান কচি, মাসুদ কাদের মনা, গোলাম রেজা, কেন্দ্রীয় গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা সিরাজুল ইসলাম রনি, শামীমা নাসরিন, লিমা ফেরদৌসী প্রমুখ।
শামীম ওসমান গতকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ২০নং ওয়ার্ড বন্দরের সোনাকান্দা, বেপারীপাড়া, মাহমুদনগর এবং বিকালে শহরের জিমখানা, ডিআইটি ও বঙ্গবন্ধু সড়কের আশপাশ এলাকায় গণসংযোগ, উঠোন বৈঠক ও পথসভা করেন। এসময় আওয়াম লীগ নেতা ও কর্মী-সমর্থকরা তার সঙ্গে ছিলেন। শহরের গলাচিপা, গোয়ালপাড়া, নন্দীপাড়া, পালপাড়া এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভা করে শামীম ওসমানের পক্ষে ভোট চান কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা কাজী জাফরউল্লাহ, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, বাহাউদ্দিন নাসিম, মৃণাল কান্তি দাস, সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ। বক্তারা বলেন, কোনো কোনো প্রার্থী এখনও নিজেকে আওয়ামী লীগের বলে দাবি করে জনগণকে ধোঁকা দিচ্ছে। যারা আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অমান্য করে তারা কখনোই আওয়ামী লীগের কর্মী হতে পারে না। চলচ্চিত্র অভিনেতা এটিএম শামছুজ্জামান শামীম ওসমানের দেয়ালঘড়ি প্রতীকে ভোট চেয়ে শহরের গলাচিপা, গোয়ালপাড়া ও বঙ্গবন্ধু সড়কের বিভিন্ন অংশে গণসংযোগ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র পরিচালক তমিজ উদ্দিন রিজভী, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট নেতা অরুণ সরকার রানাসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি লিয়াকত শিকদারের নেতৃত্বে একটি টিম বন্দরে দিনব্যাপী শামীম ওসমানের পক্ষে গণসংযোগ করে। এতে অংশ নেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা বলরাম পোদ্দার, রফিকুল ইসলাম কোতয়াল, খলিলুর রহমান, এইচএম মাসুদ দুলাল, শাহজাদা মহিউদ্দিন। শামীম ওসমানের সহধর্মিণী সালমা ওসমান লিপি শহরের আমলাপাড়া ও আশপাশ এলাকায় দিনভর গণসংযোগ ও উঠান বৈঠক করেন। ছাত্রলীগের সভাপতি বদিউল আলম সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলমের নেতৃত্বে ৯ ছাত্রী ও ৯ ছাত্রসহ মোট ১৮টি টিম শহরের ৯টি ওয়ার্ডে দেয়ালঘড়ির পক্ষে ভোট প্রার্থনা করছে। যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা অপু উকিলের নেতৃত্বে দিনভর শহরের হিন্দু অধ্যুষিত এলাকায় দেয়ালঘড়ি প্রতীকে ভোট প্রার্থনা করা হয়। এসময় আরও ছিলেন নুসরাত জাহান জিয়াসমীন, মাহমুদা মালা, নুরুন্নাহার লাভলী, সাবিনা আক্তার তুহিন প্রমুখ।
নান্নু মুন্সির গণসংযোগ
এদিকে তিন হেভিওয়েট প্রার্থীর সঙ্গে পাল্লা দিয়ে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন মেয়র প্রার্থী ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতা আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সি (গরুর গাড়ি)। গতকাল সকাল থেকে তিনি সিদ্ধিরগঞ্জের ১নং ওয়ার্ডের চিটাগাং রোড, আহসান উল্লাহ মার্কেট, হীরাঝিল ও মিজমিজি এলাকায় গণসংযোগ করেন। এছাড়া ৬নং ওয়ার্ডে উঠান বৈঠক করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় মহাসচিব অধ্যক্ষ ইউনুছ আহমেদ, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক সৈয়দ বেলায়েত হোসেন, নান্নু মুন্সির নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক সৈয়দ আহাম্মদ, সদস্য সচিব দ্বীন ইসলাম প্রমুখ।
জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে আইভীর আরও দুটি চিঠি
নাসিক নির্বাচনে সেনাবাহিনীর অবস্থান কেন্দ্রের ভিতর ও বাইরে দাবি করে জেলা রিটার্নিং অফিসারের কাছে চিঠি দিয়েছেন আইভীর প্রধান নির্বাচনী এজেন্ট ও শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। তিনি চিঠিতে উল্লেখ করেন, নারায়ণগঞ্জের অতীতের ভোট ইতিহাস খুবই ভয়াবহ। আমরা বহুবার প্রত্যক্ষ করেছি কিভাবে সন্ত্রাসীরা মানুষের ভোটের অধিকার হরণ করেছিল। কিভাবে কেন্দ্রে ঢুকে সন্ত্রাসীরা তাদের পক্ষের প্রার্থীর অনুকূলে সিল মেরে ব্যালট বাক্সে ফেলে। আমরা এও দেখেছি, ভোটের বাক্স ছিনতাই করতে এই চক্রটি খুবই পারঙ্গম। ভোট ডাকাতির হাত থেকে রক্ষার দাবি জানানো হয় চিঠিতে।
অপর চিঠিটি দেয়া হয় তুলনামূলক ভোটার সংখ্যা কম এমন কেন্দ্রে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণের ব্যবস্থা নিতে।

সূত্রঃ আমার দেশ | ২৫ অক্টোবর ২০১১

This entry was posted in আমার দেশ. Bookmark the permalink.

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s